Dark Mode
Wednesday, 30 November 2022
Logo

নতুন প্রযুক্তি ফেকক্যাচার আনছে ইনটেল 

নতুন প্রযুক্তি ফেকক্যাচার আনছে ইনটেল 

প্রযুক্তিনির্ভর দুনিয়ায় বর্তমানে ডিপফেইকের ব্যাপক প্রচলন রয়েছে। মূলত একজন ব্যক্তির মুখাবয়ব অন্য স্থানে দেখাতে এ প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়। তবে এটি শনাক্তে ফেকক্যাচার নামে নতুন শক্তিশালী প্রযুক্তি আবিষ্কার করেছে ইনটেল। খবর গিজমোদো।

 

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) প্রযুক্তি ব্যবহার করে ভুয়া ভিডিও নির্মাণের চল বেড়েছে সাম্প্রতিক বছরগুলোয়। এ প্রযুক্তি ব্যবহারের সুযোগ সাধারণ ব্যবহারকারীদের হাতের নাগালে চলে আসার পর এর অপব্যবহারও বেড়েছে। ক্ষেত্রবিশেষে রাজনৈতিক মিথ্যাচার ও বিদ্বেষমূলক অপপ্রচারে ব্যবহূত হচ্ছে এ প্রযুক্তি। উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবেলায় তত্পর হয়েছে ইনটেলসহ আরো বেশিকিছু প্রতিষ্ঠান।

 

যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম সারির প্রযুক্তি জায়ান্টটির দাবি, এ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির নির্মিত সফটওয়্যারটি ৯৬ শতাংশ ভুয়া ভিডিও শনাক্ত করতে সক্ষম। সেই সঙ্গে বিশ্বের ইতিহাসে এটিই প্রথম সফটওয়্যার। চলতি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে ফেকক্যাচার উন্মোচন করেছে যুক্তরাষ্ট্রের চিপ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানটি। বর্তমানে বাজারে ডিপফেইক শনাক্তে যেসব উপায় বা প্রযুক্তি রয়েছে সেগুলোর তুলনায় এটি উন্নত। কেননা এটি মেশিন লার্নিং প্রযুক্তিনির্ভর।

 

অন্যান্য প্রযুক্তি বিদ্যমান ভিডিওতে অসামঞ্জস্য খোঁজে। সেখানে ফেকক্যাচার ভিডিওর কনটেন্ট বিশ্লেষণ করে পর্দার ব্যক্তি আদৌ কোনো রক্ত-মাংসের মানুষ, নাকি কোনো কৃত্রিম দৃশ্যায়ন সেটি যাচাই করে। সফটওয়্যারটি কীভাবে এটি যাচাই করে এমন প্রশ্নের জবাবে ইনটেল ল্যাবসের জ্যেষ্ঠ গবেষক ইলকা ডেমির বলেন, পর্দার মুখ দেখেই ফেকক্যাচার সফটওয়্যার জেনে যায় যে ব্যক্তিটির আদৌ কোনো হূত্স্পন্দন আছে কিনা।

 

তিনি বলেন, হূিপণ্ড যখন রক্ত সঞ্চালন করে, তখন আমাদের শিরা-উপশিরাগুলো রঙ পাল্টাতে থাকে। মুখের বিভিন্ন জায়গা থেকে এ রক্ত সঞ্চালনের তথ্য সংগ্রহ করে বিশ্লেষণ করে অ্যালগরিদম। এরপর ডিপ লার্নিং প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমরা তাত্ক্ষণিকভাবে সিদ্ধান্ত নিতে পারি যে ভিডিওটি আদৌ আসল, নাকি ভুয়া। প্রক্রিয়াটি ফটোপ্লেথিসমোগ্রাফি (পিপিজি) নামেও পরিচিতি বলে জানা গিয়েছে।

 

ডেমির জানান, ভিডিওতে ত্বকের বিভিন্ন অংশের রঙ পরিবর্তন হলে মানুষের চোখে সেটি সহজে ধরা পড়ে না। কিন্তু কম্পিউটারের সক্ষমতাকে ফাঁকি দেয়া যায় না। পিপিজি সিগন্যালের বিষয়টি আগে জানা থাকলেও ডিপফেইক জটিলতার সমাধানে আগে কখনো প্রয়োগ করা হয়নি। ফেকক্যাচার মুখের ৩২টি জায়গা থেকে পিপিজি সিগন্যাল সংগ্রহ করে বলেও জানান তিনি।

 

বিটি/ আরকে

Comment / Reply From

Stay Connected

Vote / Poll

ঈদযাত্রায় এবছর যানজট অনেকটা কম হবার কারণ কী বলে মনে করেন?

View Results
আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর যথাযথ পদক্ষেপ
0%
যথাসময়ে সড়কের উন্নয়ন কাজ শেষ
100%
যানজট এখনও রয়েই গেছে
0%
21313